অপারেশন শেষে পেটে কাঁচি রেখে সেলাই!

রোগীর পেটের মধ্যে ‘ডাক্তারি’ ছুরি-কাঁচি রেখেই সেলাই করে ফেলেছিলেন এক চিকিৎসক। গত তিন মাস ধরে রোগীর পেটেই ছিল ওইসব ছুরি কাঁচি। শেষমেষ গত শনিবার (৯ ফেব্রুয়ারি) ফের অস্ত্রোপচার করে বের করা হয় কাঁচি। এ ঘটনা ঘটেছে ভারতের হায়দরাবাদের একটি হাসপাতালে। সেখানে মাসখানের আগে অস্ত্রোপচারের জন্য ভর্তি হয়েছিলেন এক মহিলা। চিকিৎসকেরা অস্ত্রোপচারের সময় ডাক্তারির বিশেষ কাঁচি বা ফরসেপ ওই মহিলার পেটের ভিতরেই রেখে বেমালুম ভুলে যান। করে ফেলেন সেলাই। তিন মাস ধরে রোগীর পেটেই ছিল ওইসব ছুরি কাঁচি।

বলা হচ্ছে চিকিৎসকের অবহেলার কারণে ঘটেছে এ ধরণের ঘটনা। তিন মাস পর যখন পরীক্ষা নিরীক্ষার জন্য ওই মহিলাকে ফের ওই হাসপাতালেই নিয়ে যাওয়া হয় এবং এক্স রে করানো হয়। এক্স রে রিপোর্ট দেখেই সবাই অবাক হয়ে যান। রিপোর্টে দেখা যায় মহিলার পেটের মধ্যে রয়েছে একটি ডাক্তারি কাঁচি। অবিলম্বে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। গত শনিবার ফের অস্ত্রোপচার করে কাঁচি বের করা হয়।

এনআইএমএসের পরিচালককে মনোহর বলেন, রোগী আমাদের প্রথম অগ্রাধিকার। যত তাড়াতাড়ি সম্ভব আমরা রোগীর স্বাস্থ্য সমস্যা মিটিয়ে দিতে ওই উপকরণটি বের করে দিচ্ছি। সংবাদ সংস্থা পিটিআই জানায়, পুলিশের কাছে, দু’জন ডাক্তারের বিরুদ্ধে ওই মহিলার স্বামী অভিযোগ দায়ের করেছেন। ক্রেতা সুরক্ষা আদালতও বিষয়টি দেখছে।

আরও পড়ুন – ট্রলির ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত:  ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া কাঠ ভর্তি ট্রলি গাড়ির ধাক্কায় জহর উদ্দিন নামে এক মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় ট্রলির চালক ইয়াসিন আলী, হেলপার মনির ও সুমনকে আটক করেছ পুলিশে। নিহত জহর উদ্দিন উপজেলার সোয়াইতপুর গ্রামের হাফেজ আলীর পুত্র। তিনি সোয়াইতপুর বাজারে মুরগির খাদ্যের ব্যবসা করতেন বলে জানা গেছে।

সোমবার (১১ ফেব্রয়ারি) সন্ধ্যার পর উপজেলার পাটির-হুরবাড়ি সড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে। ফুলবাড়িয়া থানার ওসি শেখ কবিরুল ইসলাম জানান, সোয়াইতপুর বাজার থেকে বিকালে কাঠভর্তি করে ট্রলি গাড়িটি নিয়ে ময়মনসিংহের যাবার পথে হুরবাড়ি ঈদগা মাঠ সংলগ্ন সড়কে মোটরসাইকেল আরোহী জহর উদ্দিনকে ধাক্কা দেয়। এতে তিনি গুরুতর আহত হন। পরে আহত অবস্থায় হাসপাতালে নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় ট্রলিগাড়ির চালকসহ তিনজন আটক করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Student BD © 2017