দুই বছর ধরে প্রবাসে স্বামী, দেশে অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী!

কুমিল্লার লাকসামে বাকপ্রতিবন্ধী পুত্রবধূকে ধর্ষণের অভিযোগে শ্বশুর ও দেবরকে আটক করেছে পুলিশ। ঘটনাটি ঘটেছে রোববার (১০ ফেব্রুয়ারি) উপজেলার বাকই দক্ষিণ ইউনিয়নের কোয়ার গ্রামে। আটককৃতরা ওই গ্রামের মৃত. ফজর আলীর ছেলে সফি উল্যাহ (৫০) ও তার ছেলে পরান হোসেন (২০)। ধর্ষিতা গৃহবধূর স্বামী প্রায় গত দেড় বছর যাবত প্রবাসে রয়েছে। ধর্ষিতা গৃহবধূ ২ সন্তানের জননী।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার বাকই দক্ষিণ ইউনিয়নের কোয়ার গ্রামের এক প্রবাসীর বাকপ্রতিবন্ধি স্ত্রীকে র্দীঘদিন যাবত তার শ্বশুর ধর্ষণ করে আসছিলো। এতে ওই প্রতিবন্ধী গৃহবধূ ৭ মাসের অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে। ধর্ষিতা গৃহবধূর স্বামী প্রায় গত দুই বছর যাবৎ প্রবাসে রয়েছে।

গতকাল এ বিষয়টি জানাজানি হলে স্থানীয়রা লাকসাম থানা পুলিশকে খবর দেয়। সংবাদ পেয়ে থানা পুলিশের এস.আই কামাল হোসেন ঘটনাস্থল থেকে ধর্ষক সফি উল্যাহ ও তার ছেলে পরান হোসেনকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। এর আগেও সফিউল্লার বিরুদ্ধে একাধিক বিয়ে এবং নারী কেলেঙ্কারীর অভিযোগ রয়েছে বলে স্থানীয়রা জানান। লাকসাম থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মনোজ কুমার দে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন।

আরও পড়ুন: তরুণীর লালসার শিকার ৫ বছরের শিশু : ব্যস্ততার কারণেই পরিবারের কারও পক্ষে সম্ভব হচ্ছিল না, সারাদিন বাচ্চাটির খেয়াল রাখা। তাই রাখা হয়েছিল এক বেবি সিটারকে। কিন্তু ভাবাও যায়নি, কেমন বিপদে পড়তে চলেছে নিষ্পাপ শিশুটি। তাকে যৌনক্রিয়ায় অংশ নিতে জোর করার অভিযোগে শেষমেশ গ্রেফতার হল ১৮ বছরের ওই বেবি সিটার।এক আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবরের সূত্রে জানা যাচ্ছে, মেরি মেডেলিন নামের ওই তরুণীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

কেমন করে ফাঁস হল তরুণীর বিকৃতকামের খবর? সে কাজটি করেছে ওই নির্যাতিত শিশুই। সে তার মাকে সব কথা জানালে তিনি পুলিশের দ্বারস্থ হন। শিশুটির বক্তব্য থেকে পরিষ্কার, ওই বেবি সিটার তাকে যৌনক্রিয়া করতে জোর করে। ওই শিশু ও তরুণীর উপর পরীক্ষা চালানো হয়েছে। পরীক্ষায় তরুণীর স্তনে শিশুটির ডিএনএ পাওয়া গিয়েছে। ওই তরুণীর যৌনাঙ্গ থেকেও ডিএনএ উদ্ধার করা হয়েছে। তবে সেটি ওই শিশুরই কি না, তা এখনও স্পষ্ট নয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Student BD © 2017